শনিবার, ১২ জুন ২০২১, ১১:৪১ অপরাহ্ন

সুজানগরে মেয়েকে বাবার নিকট ফিরিয়ে দিতে গিয়ে দুই পুলিশ সদস্য ছুড়িকাহত

নিজস্ব প্রতিনিধি, পাবনামেইল টোয়েন্টিফোর ডটকম
  • প্রকাশিত বুধবার, ২ জুন, ২০২১
Pabnamail24

পাবনার সুজানগরে (সার্চ ওয়ারেন্টে) বাচ্চা উদ্ধার করতে গিয়ে দুই পুলিশ সদস্য ছুড়িকাহত হয়েছেন। বুধবার বিকেলে উপজেলার মানিকহাট ইউনিয়নের খয়রান গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। আহত দুই পুলিশ সদস্যকে সুজানগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তারা হলো সুজানগর থানার এএসআই শফিকুল ইসলাম ও কনষ্টেবল মামুন। এ ঘটনায় পুলিশ একজনকে ছুড়িসহ আটক করেছেন।

সুজানগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান ঘটনার বিবরনে জানান, পাবনা সদর উপজেলার চরতারাপুর ইউনিয়নের আরিয়া গোহাইলবাড়ি গ্রামের হাসান আলীর সাড়ে তিন বছরের মেয়েকে রেখে গত বছর স্ত্রী আত্মহত্যা করেন। এরপর হাসান আলীর শ^শুরবাড়ির লোকজন তার মেয়ে মারজিয়াকে পাশ^বর্তী গ্রাম তারাবাড়িয়াতে নিয়ে যায়।

শ^শুরবাড়ির লোকজনের নিকট থেকে মেয়েকে ফিরে পেতে হাসান আলী আদালতের শরনাপন্ন হন। ইতিমধ্যে তার শ্যালক পাবনা সদর উপজেলার তারাবাড়িয়া গ্রামের জালাল উদ্দিন খানের ছেলে শাহাদত আলী ভাগ্নি মারজিয়াকে টাকার বিনিময়ে সুজানগর উপজেলার খয়রান গ্রামের আরশেদ আলী মল্লিকের ছেলে নি:সন্তান সাইফুল ইসলাম মল্লিকের নিকট দত্তক দেন। গত দেড় মাস ধরে সাইফুল ইসলাম মারজিয়াকে লালন পালন করছিলেন।

এরই মধ্যে নিজ মেয়ে মারজিয়াকে ফিরে পেতে অনেক বার চেষ্টা করেও ব্যার্থ হন পিতা হাসান আলী। এক পর্যায়ে আদালতের রায়ের পর তিনি সুজানগর থানা পুলিশের সরনাপন্ন হন এবং বুধবার বিকেলে নিজ মেয়েকে ফিরে পেতে দত্তক গ্রহনকারী খয়রান গ্রামের সাইফুল মল্লিকের বাড়িতে যান। বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে দত্তক গ্রহনকারী সাইফুল মেয়েটির নানা জালাল উদ্দিন খান ও মেয়েটির মামা শাহাদত আলীকে খবর দেন। তারা সেখানে উপস্থিত হলে ব্যাপক বাকবিতন্ডা হয় সেখানে।
এরই এক পর্যায়ে মেয়েটির মামা শাহাদত উপস্থিত লোকজনকে ছুড়িকাহত করার চেষ্টা করেন। এ সময় উপস্থিত দুই পুলিশ সদস্য আহত হন বলে নিশ্চিত করেন সুজানগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিজানুর রহমান।

 

তিনি আরো জানান, ঘটনার পরপরই পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি ছুড়িসহ পাবনা সদর উপজেলার তারাবাড়িয়া গ্রামের জালাল উদ্দিন খানের ছেলে শাহাদতকে আটক করেছে। বিষয়টি নিয়ে জেলা পুলিশের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদেও সাথে আলাপ শেষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। এদিকে সার্চ ওয়ারেন্টে যাওয়া ভিকটিম উদ্ধার করে তার পিতার নিকট হস্তান্তরের পক্রিয়া চলছে।

পাবনার পুলিশ সুপার মহিবুল ইসলাম খান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমি ঘটনাস্থলের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছি। আমাদের দুই পুলিশ সদস্যকে সুজানগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। আর উদ্ধারকৃত মেয়েকে আদালতের রাতে তার পিতার নিকট বুঝিয়ে দেওয়ার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শেয়ার করুন

বিভাগের আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!