বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ১১:০২ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
আব্দুল্লাহ-গালিব সৃতি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের খেলায় পাবনা ইগলস জয়ী পাবনায় আদালত চত্বর থেকে সাক্ষী অপহরণ, বাধা দেয়ায় লাঞ্ছিত ৩ আইনজীবী চলনবিলে শীত উপেক্ষা করে কৃষকরা বোরো রোপণে ব্যস্ত ঈশ্বরদীতে শিশু হত্যা মামলায় এক আসামির যাবজ্জীবন চলনবিলাঞ্চলে শীতে ছিন্নমূল মানুষের দুর্ভোগ চাটমোহরে ছিনতাইকারীর কবলে পড়ে দুধ ব্যবসায়ীর মৃত্যু জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে নির্বাচনী সংঘাতে এলাকাছাড়া পরিবারের সংবাদ সম্মেলন স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা গ্রহণের দাবিতে পাবনায় শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন পাবনায় পদ্মা নদীর বুকে সেই রাস্তা অপসারণ করলো প্রশাসন রূপপুর প্রকল্পে থামছে না চুরি, এবার ক্যাবল চুরি

পাবনার শিশু গৃহকর্মীকে খুন্তির ছ্যাকায় নির্মম নির্যাতন ঢাকায়, বিচার দাবী

বিশেষ প্রতিবেদক, পাবনামেইল টোয়েন্টিফোর ডটকম
  • প্রকাশিত শনিবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২১
Pabnamail24

কাজ পছন্দ না হলেও সারা শরীরে দেয়া হতো গরম খুন্তির ছ্যাকা। কান্নার শব্দ বন্ধ করতে মুখে পুরে দেয়া হতো গামছা। দিনের পর দিন এমন নির্যাতনে অতিষ্ট হয়ে রাজধানী থেকে বাড়ি ফিরেছে পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার নয় বছর বয়সী এক শিশু গৃহকর্মী। শিশুটির নাম জান্নাতুল, সে উপজেলার বিষ্ণুপুর গ্রামের জান বক্সের মেয়ে। নির্যাতনের কথা কাউকে জানালে শিশুটিকে মেরে ফেলারও হুমকী দিয়েছে নির্যাতনকারী গৃহকর্তী।

ভুক্তভোগী শিশুর পরিবার জানায়, উপজেলার বিষ্ণুপুর গ্রামের জান বক্স বছর পাঁচেক আগে দ্বিতীয় বিয়ে করে বাড়ি ছাড়েন। প্রথম স্ত্রী নুরজাহান খাতুন (৪৫) ২ মেয়ে ও ১ ছেলে নিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েন। বড় মেয়েকে বিয়ে দিলেও অভাবের সংসারে যেন দুচোখে অন্ধকার দেখেন নুরজাহান। কাজের সন্ধানে তিনি দুই শিশু সন্তান নিয়ে ঢাকায় চলে যান ।

৩ বছর আগে ঢাকা থেকে আবারও গ্রামে ফিরে এসে বাড়ি বাড়ি গৃহকর্মীর কাজ করেন মা নুরজাহান। এতেও সংসারের অভাব দুর না হওয়ায় বাধ্য হয়ে ৯ বছরের জান্নাতুল খাতুনকে সাঁথিয়ার রায়েকমারী গ্রামের মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে মিঠুর ঢাকার বাসায় কাজের জন্য পাঠান।

সেখানে গৃহকর্তা মিঠুর স্ত্রী শাপলার নির্যাতনে অতিষ্ঠ হয়ে ওঠে জান্নাতুল। শাপলা কাজ পছন্দ না হলেই জান্নাতুলকে মারপিট ও গরম খুনতির ছ্যাকা দিতেন। চরম নির্যাতন করে গত ২৯ অক্টোবর ৯ মাস পর তাকে বাসে ঢাকা থেকে পাবনায় পাঠায়। মিঠুর মা মায়া খাতুন জান্নাতুলকে বাড়িতে পৌছে দেন।

পরিবারের দেয়া সংবাদে, শুক্রবার জান্নাতুলের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় তার দুই হাত, পিঠে, মুখে নির্যাতনের চিহ্ন। খুনতির ছ্যাকার দাগ এখন শরীরিরের সাথে মিশেনি। জান্নাতুল জানায়, কোন কাজ করতে বা নির্দেশ পালন করতে বিলম্ভ হলেই মিঠুর স্ত্রী শাপলা শুরু করতো অসহনীয় অত্যাচার।

যাতে শব্দ বাইরে না আসে তার জন্য মুখের মধ্যে গামছা পুরে দিত। আমি বাড়ি আসতে চাইলে তারা আরও বেশী মারধোর করতো। মায়ের সাথে ফোনে যোগাযোগ করতে দিত না। বাড়িতে এসে নির্যাতনের কথা কাউকে জানালে আমাকে মেরে ফেলার হুমকীও দিয়েছে তারা।

জান্নাতুলের মা নুরজাহান জানান, মিঠুর মা সাঁথিয়ার ক্ষেতুপাড়া আব্দুস সাত্তার উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মায়া বেগম ভরণপোষণ ও বিয়ের চুক্তিতে বাসার কাজের জন্য আমার মেয়েকে ঢাকার উত্তরার খিলক্ষেত তার ছেলের বাসায় পাঠান। মিঠুর মা মাসে মাসে ঢাকায় গেলেও অত্যাচারের কথা গোপন রেখেছিল।

আমি আমার মেয়ের “পেটের ভাতের জন্য কাজে পাঠিছিলাম, অত্যাচারের জন্য নয়”। তিনি মেয়ের প্রতি নির্যাতনের বিচার দাবি করেন।

এ ব্যাপারে মিঠুর মোবাইল ফোনে বার বার যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন ধরেননি। মিঠুর মা ক্ষেতুপাড়া আব্দুস সাত্তার উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মায়া খাতুন জানান, জান্নাতুলকে আমি কাজের জন্য ঢাকা পাঠাই। সেখানে সে সড়ক দূঘর্টনায় আহত হয়েছে বলেই ফোন কেটে দেন।

এ ব্যাপারে সাঁথিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আশিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম জানান, ঘটনাস্থল ঢাকা হওয়ায় মামলা সেখানেই করতে হবে। আমি জান্নাতুলের পরিবারকে ঢাকায় সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা করার পরামর্শ দিয়েছি। শনিবার তারা ঢাকা খিলক্ষেত থানায় মামলার দায়ের করেছেন বলে শুনেছি।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শেয়ার করুন

বিভাগের আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!