শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২২, ১১:১০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
আব্দুল্লাহ-গালিব সৃতি ক্রিকেট টুর্নামেন্টে নিমফুল রিফাত সৃতি সংঘের ২ উইকেটে জয় পাবিপ্রবি ভিসির বিরুদ্ধে নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ, গনিত বিভাগের চেয়ারম্যান লাঞ্ছিত সাঁথিয়ায় দেবরের ঘরে ভাবির বিয়ের দাবিতে আমরণ অনশন আব্দুল্লাহ-গালিব সৃতি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের খেলায় পাবনা ইগলস জয়ী পাবনায় আদালত চত্বর থেকে সাক্ষী অপহরণ, বাধা দেয়ায় লাঞ্ছিত ৩ আইনজীবী চলনবিলে শীত উপেক্ষা করে কৃষকরা বোরো রোপণে ব্যস্ত ঈশ্বরদীতে শিশু হত্যা মামলায় এক আসামির যাবজ্জীবন চলনবিলাঞ্চলে শীতে ছিন্নমূল মানুষের দুর্ভোগ চাটমোহরে ছিনতাইকারীর কবলে পড়ে দুধ ব্যবসায়ীর মৃত্যু জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে নির্বাচনী সংঘাতে এলাকাছাড়া পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

সাঁথিয়া পুলিশের ভারসাম্যহীন মেয়েকে উদ্ধার, বাবার নিকট হস্তান্তর

নিজস্ব প্রতিনিধি, পাবনামেইল টোয়েন্টিফোর ডটকম
  • প্রকাশিত সোমবার, ২ আগস্ট, ২০২১
Pabnamail24

পাবনার সাঁথিয়ায় মানুষিক ভারসাম্যহীন এক মেয়েকে উদ্ধার করে তার বাবার নিকট তুলে দিল সাঁথিয়া থানা পুলিশ। রবিবার গভীর রাতে পুলিশ মেয়েটির বাবার নিকট তুলে দেন।

সাঁথিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম জানান , গত ০১ আগষ্ট রবিবার রাত সোয়া ৯টার সময় একটি মেয়ে (২০) সাঁথিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান এর বাসার সামনে এসএসএস নামে একটি এনজিও প্রতিষ্ঠানের দরজা খোলা পেয়ে ভিতরে প্রবেশ করে। খবর পেয়ে তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। মেয়েটিকে জিজ্ঞাসাবাদে তার নাম ঠিকানা না বলে অসংলগ্ন কথাবলে। শুধু বলে সে তার বান্ধবীদের সাথে পাবনা মানসিক হাসপাতালে ঘুরতে এসেছিল। বান্ধবীরা তাকে রেখে চলে গেছে। তার বাড়ি ঢাকার মিরপুর বলে জানায়।

তার কথাবার্তা অসংলগ্ন হওয়ায় পুলিশ সুপারের নির্দেশে জিডি মুলে নারী পুলিশের হেফাজতে রাখা হয়। পরে তার পরিচয় উদঘাটনের জন্য সোশ্যাল মিডিয়ায় পাবনা জেলা পুলিশের ফেসবুক পেজে ওই মেয়েটির ছবি দিয়ে কেউ মেয়েটির পরিচয় জানলে যোাগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করে পোষ্ট দেয়া হয়। ফেসবুকে পোষ্ট দেয়ায় বিভিন্ন কমেন্টসের সুত্র ধরে পুলিশ মেয়েটির পরিচয় জানতে পারেন যে, সে সাঁথিয়া উপজেলার করমজা ইউনিয়নের করমজা পশ্চিম পাড়া আজগর আলীর মেয়ে। পরে পুলিশ তার বাবাকে থানায় ডেকে এনে যাচাই বাছাই করে রাতেই ওই মেয়েটিকে তার বাবার নিকট হস্তান্তর করেন।

ওই মেয়েটি ভারসাম্যহীনের বিষয়ে খোঁজ নিতে গেলে জানা যায়, গত বছর সেনাবাহিনীতে কর্মরত এক ব্যক্তির সাথে মেয়েটির সম্পর্ক হয়। পরে ওই সেনাসদস্য ওই নারীকে বিয়ে না করে অন্য কাউকে বিয়ে করতে গেলে মেয়েটি সাঁথিয়া থানায় অভিযোগ দেন। পরে ওই সেনা সদস্য তাকে ৫ লাখ টাকা দেনমোহরে বিয়ে করেন। বিয়ের পর তাদের মধ্যে বনিবনা না হওয়ায় মেয়েটির বাবা কাবিনের ৫ লাখ টাকা নিয়ে সেনাসদস্যর কাছ থেকে ডিভোর্স নেন। কিছুদিনের মধ্যে মেয়েটির মা মারা যান। মা মারা যাওয়া ও বিয়েতে ডিফোর্স হওয়া বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আস্তে আস্তে ভারসাম্যহীন হয়ে যায়।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শেয়ার করুন

বিভাগের আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!