বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৫:২৭ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
পাবনা সুগার মিল বন্ধের প্রতিবাদে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ ২৯তম আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস ও ২২তম জাতীয় প্রতিবন্ধী দিবস পালিত সাঁথিয়ায় ৩ বারের মেয়রকে বাদ দিয়ে প্রার্থীর তালিকা বিনামূল্যে পেঁয়াজ ও রসুন বীজ বিতরণ পাবনার বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর ফখরুল ইসলাম আর নেই চাটমোহর পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে আ’লীগ-বিএনপিসহ ৫ প্রার্থীর মনোনয়ন জমা ব্রিজ ভাঙ্গা নিয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের নবনির্বাচিত কমিটির নেতৃবৃন্দকে সংবর্ধনা বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে কর্মবিরতি অব্যাহত ভুমি অফিস ভবনের স্থান নিয়ে পাল্টাপাল্টি অনশন ও মানববন্ধন

জলাশয় লীজ গ্রহীতার কাছে ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতির চাঁদা দাবী, মাছ ধরতে বাধা

নিজস্ব প্রতিনিধি, পাবনামেইল টোয়েন্টিফোর ডটকম
  • প্রকাশিত মঙ্গলবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২০
Pabnamail24

পাবনার সাঁথিয়া সরকারী লীজকৃত জলকরে খাস কালেকশন দায়িত্বপ্রাপ্তর নিকট চাঁদা দাবী, না পেয়ে বাধা প্রদান ও হুমকীর অভিযোগ উঠেছে করমজা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফুল ইসলামের বিরুদ্ধে।

সাঁথিয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) বরাবর লিখিত অভিযোগে জানা যায়, সাঁথিয়া উপজেলাধীন আরাজি আফড়া মৌজায় পালিদহ, কাটিয়াদহ, কাছুমগাড়ী, জিয়ালগাড়ী ও গরুচুনা কেস নং ৯০ বিলসহ জলকর উপজেলা ভূমি অফিস থেকে সর্বোচ্চ মুল্যে ভ্যাটসহ ৯৭ হাজার ২শ’টাকায় গত ১৫ নভেম্বরে ১ বছরের মেয়াদে খাস কালেকশনের দায়িত্ব পান আফড়া গ্রামের রফিকুল ইসলাম। সে লীজ গ্রহণের পর কয়েকজনকে সাথে নিয়ে বিলে মাছ ধরার জন্য গেলে স্থানীয় সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ ও বেশ কয়েকটি মামলার আসামী করমজা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফুল ইসলাম ও তার সহযোগী ১৫-২০ জনকে লইয়া রফিকুলের সাথে থাকা লোকজনকে ঘিরে ধরে ও চাঁদা দাবী করে। চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে তারা অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হইয়া ভয়ভীতি ও গুলি করে প্রাণ নাশের হুমকী দিয়ে জলকর এলাকা থেকে জোরপূর্বক তাড়িয়ে দেয়। রফিকুল ও তার লোকজন ভীত সন্ত্রস্থ হয়ে প্রাণভয়ে জলকর থেকে চলে এসে পরের দিন বিষয়টি উপজেলা সহকারী (ভূমি) অবগত করে অভিযোগ দায়ের করেন। আবেদনের অনুলিপি রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর দেন। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

এ ব্যাপারে করমজা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফুল ইসলাম এর কাছে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি জানান, চাদা চাওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। ওরা জামায়াতের রাজনীতির করে বলেই আমার বিরুদ্ধে এই ধরনের অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। তবে আমার রাজনৈতিক ভবিষ্যতকে ধুলিস্যঅত করতেই তাদেও এই নীল নকশা।

অভিযোগকারী রফিকুল ইসলাম বলেন, কোন কিছুতে ফাসাতে না পারলেই এখন জামায়াত-শিবির বলা একটি কালচারে পরিনত হয়েছে। আমরা জামায়াত করি কিনা তা এখটু খোজ নিলেই প্রমান পাওয়া যায়। এ বিষয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফয়সাল রায়হান অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ সত্যতার প্রমান পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!