মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:৫৭ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
পাবনা-৪ উপ-নির্বাচনে গণসংযোগে স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ চাটমোহরে দুইদিন ব্যাপী ভেলা বাইচ প্রতিযোগিতা পাবনায় এইচআইভি-এইডস প্রতিরোধে লাইট হাউসের মতবিনিময় সভা সাঁথিয়ায় শালিসে ডেকে মারপিট করার অভিযোগ ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বেড়ায় দুই গোষ্ঠির মারামারি, আহত ৪ ঈশ্বরদীতে উপনির্বাচনের সভায় বিএনপির দু’গ্রুপে সংঘর্ষ, আহত ১৫ ‘উপনির্বাচনে কারচুপি হলে ঈশ্বরদী থেকেই সরকার পতনের আন্দোলন শুরু হবে’- আমান উল্লাহ পাবনা-৪ উপ-নির্বাচনের প্রচারণায় উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি, করোনা সংক্রমণের আশংকা পাবনা-৪ উপনির্বাচন-আসন ধরে রাখতে মরিয়া আ’লীগ, পুনরুদ্ধারের চেষ্টায় বিএনপি ভাঙ্গুড়ায় বৃক্ষ বিতরণ ও রোপণ করল ‘মানবিক ভাঙ্গুড়া’

সাঁথিয়ায় দেলো বাহিনীর অত্যাচারে অতিষ্ঠিত এলাকাবাসী, ঘর ছাড়া দুই পরিবার

নিজস্ব প্রতিনিধি, পাবনামেইল টোয়েন্টিফোর ডটকম
  • প্রকাশিত মঙ্গলবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০
Pabnamail24

পাবনার সাঁথিয়ায় দেলোয়ার শেখ দেলো বাহিনীর অত্যাচারে ঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে দারিদ্র দুই পরিবার। ওই বাহিনীর হামলা থেকে রক্ষা পায়নি মহিলা ও শিশু সন্তান। তারদের বিরুদ্ধে হামলা ও লুটপাটের অভিযোগও রয়েছে।

সূত্রে জানা যায়, সাঁথিয়া উপজেলার ক্ষেতুপাড়া ইউনিয়নের যশোমন্তদুলিয়া গ্রামের ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা ও পাবনা জেলা ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক সজিব হাসান জয়ের বাবা দেলোয়ার বাহিনীর অত্যাচারে অতিষ্ঠিত হয়ে পড়েছে এলাকাবাসী। সাধারণ মানুষ দেলোয়ারের ভয়ে আতংকৃত হয়ে বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র পালিয়ে ফিরছে। নিজেদের পক্ষে অবস্থান না নেওয়ায় গত ২৯ আগস্ট দেলোয়ার তার মামা নাজেরসহ ২০/২৫ জনকে দিয়ে গ্রামের আবু তাহেরের ছেলে মকবুল হোসেন মকুলের বাড়িতে হামলা করে।

হামলাকারীরা মকুলের স্ত্রী লিপি খাতুন (৩২) ও তার ৯ মাসের শিশু সন্তান মিজানুরকে আহত করে। ধারালো অস্ত্রের আঘাতে শিশু মিজানের পা কেটে যায়। হামলাকারীদেও প্রতিহত করলে নাজের প্রাং (৫০) এর মাথায় লাঠির আঘাত লাগে। পরে মকুলের পরিবারকে ধাওয়া দিয়ে বাড়ি ছাড়া করে দেলোয়ার বাহিনী। সোমবার (৭ সেপ্টেম্বর) মকুলের ভাই এরশাদ তার বাড়িতে গাভীর খড় আনতে গেলে প্রতিপক্ষরা তাকেও ধাওয়া করে।

গত রবিবার দুপুরে যশোমন্ত দুলিয়া গ্রামের মকুলের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, প্রতিটি ঘরে তালা ঝুলছে। রান্নার মাটির প্রতিটি চুলা ভাঙ্গা। ঘরের টিনে ধারালো অস্ত্রের চিহ্ন। অনেক খুঁজাখুঁজি করে গ্রামের রহমানের বাড়িতে দেখা হয় মকুলের সাথে। তিনি জানান, রাস্তায় পেলেই দেলো বাহিনী মেরে ফেলবে বলে জানাচ্ছে। আত্মরক্ষায় আমি পরিবার নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছি। তিনি আরও বলেন, হামলা করে তারা আমার ঘরে ঢুকে নগত টাকা ও স্বাণালংকার লুট করে। পাশেই আনসার আলী নামে এক বয়স্ক ব্যক্তি বলেন ওদের ভয়ে আমার ভায়রা রহমান বাড়ির বাইরে যেতে না পারায় ধানের জমির পরিচর্যার জন্য আমাকে ডেকে এনেছে। রহমান জানান, স্থানীয় চেয়ারম্যান সালিশ করে রায় দিলেও দোলো তা মানেন না। সালিশের রায় অপেক্ষা করে আমাদের মারার জন্য রাস্তা দিয়ে ঘুরে বেড়ায়। নাম প্রকাশ না করার সর্তে অনেক আওয়ামীলীগ নেতা, কর্মীসহ স্থানীয়রা জানান, দোলো বাহিনীর অপকর্মের বিরোধীতা করলেই শুরু হয় নির্যাতন। তাদেও অত্যাচাওে এলাকাবাসী অতিষ্ঠিত হয়ে পড়েছে।

এদিকে একই গ্রামের গোলাম মোস্তফার ছেলে ছাত্রলীগ নেতা জাহাঙ্গীর জানান, আমার বাবা একটি জমি ক্রয়ের জন্য ২০১৯ সালে অগ্রীম ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা বায়না দেয়। দেলোয়ারের প্ররোচনায় জমির মালিক জিন্দার জমি রেজিষ্টার করতে তালবাহনা করে। পরে বায়নার টাকা ফেরত চাইলে দেলোয়ারের নিকট টাকা দিয়েছে বলে জানায়। টাকা চাইতে গেলে দেলোয়ার হামলা ও মামলার ভয় দেখায়। একপর্যায় রাস্তায় পেলে মারার হুমকী দেওয়ায় আমি দীর্ঘ দিন ধরে আত্বীয়ের বাড়িতে পালিয়ে রয়েছি।

আওয়ামীলীগ নেতা দেলোয়ারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, নিজেরা ঘরের জিনিসপত্র সরিয়ে আমাদের দোষারোপ করা হচ্ছে। ক্ষেতুপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুনসুর আলম পিনচু বলেন, মারামারির পর মকুলের পরিবার ভয়ে ঘর ছাড়া রয়েছে। আমি রবিবার মহিলাদের বাড়িতে তুলে দিলেও পুরুষরা ভয়ে বাইরে রয়েছে।
সাঁথিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান বলেন, দেলোয়ার বাহিনী বিষয়ে আমি অবগত নয়। ক্ষতিগ্রস্তরা অভিযোগ করলে আমি ব্যবস্থা নিব।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!