শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২:৩১ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
পাবিপ্রবিতে শহিদ মিনারে ফুল দিতে বাধা, দু’পক্ষের হাতাহাতি ভাষা আন্দোলনের চেতনাকে ধারণ করে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে রেলে সস্তায় পরিবহণের সুযোগ দেয়া হবে-পাবনায় রেলমন্ত্রী পাস্ট ডিরেক্ট রিক্রুটেড অফিসার্স এসোসিয়েশনের আত্মপ্রকাশ সনি বিশ্বাস এফবিসিসিআই‘র স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান নির্বাচিত পাবিপ্রবিতে জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস পালিত, ডরমিটরি উদ্বোধন চাটমোহরে প্রতিপক্ষের মারধরে এক ব্যাক্তি নিহত, বাবা-ছেলে আটক স্কয়ারের ফ্যামিলী স্পোর্টস ডে পালিত প্রবাসীর স্ত্রী ও শিশু সন্তানকে হত্যার ঘটনায় থানায় মামলা চাটমোহরে প্রবাসীর স্ত্রী ও শিশু সন্তানকে শ্বাসরোধে হত্যা

র‍্যাগিংয়ের শিকার পাবিপ্রবি ছাত্রী

নিজস্ব প্রতিনিধি, পাবনামেইল টোয়েন্টিফোর ডটকম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী সিনিয়র শিক্ষার্থীদের হাতে র‍্যাগিংয়ের শিকার হয়েছেন৷ তাকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্শবর্তী রব্বেজ টাওয়ারে (ছাত্রীনিবাস) এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী। তবে অভিযুক্তদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক সূত্রে জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্শবর্তী ৫ তলা বিশিষ্ট রব্বেজ টাওয়ারে অনেক ছাত্রী ম্যাস করে থাকেন। শনিবার রাত ৮টার দিকে প্রথম বর্ষের বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীকে নিজেদের রুমে ডাকেন সিনিয়র শিক্ষার্থীরা। এ সময় ভুক্তভোগী নিজেকে অসুস্থ দাবি করে যেতে রাজি হয়নি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে ছাত্রীনিবাসের ছাদে নিয়ে গেয়ে রাত ১১টা পর্যন্ত বিভিন্ন ভাবে র‍্যাগিং করান। সে গুরুত্ব অসুস্থ হলে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

র‍্যাগিংয়ের বর্ণনা দিতে নারাজ ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী বলেন, তার মতো এরকম ঘটনার শিকার যেন কেউ না হয়। আমার এই ঘটনা আমার পরিবার বা অন্য কেউ না জানুন- এই জন্য বলতে চাচ্ছি না। আমি সিনিয়র আপুদের অনেক নিষেধ করার পরও তারা আমার কথা শোনেননি। এর বেশি কিছু আমি বলতে পারবো না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষার্থীরা জানান ঘটনা ধামাচাপা দিতে চেষ্টা করছেন ম্যাসে মালিক আবুল কালাম আজাদ। আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘রাতে ১০ জন জুনিয়র শিক্ষার্থীকে ম্যাসের সিনিয়র কিছু শিক্ষার্থী ওপরে ডেকে নিয়েছিল। কিন্তু তেমন কিছু হয়নি। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লোকজন আসছিল। সে একটু অসুস্থ হয়ে গেয়েছিল আরকি।’

এ বিষয়ে ইতিহাস বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মো. হাবিবুল্লাহ বলেন, বিষয়টি জানার পরপরই আমি খোঁজখবর নিয়েছি। এবং তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছি। আমি তো তাদের শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে পারি না। এ বিষয়ে আমি প্রক্টর ও ছাত্র উপদেষ্টাকে জানিয়েছি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. কামাল হােসেন বলেন, এরকম ঘটনা আমিও শুনেছি। ওই শিক্ষার্থীসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে আগামীকাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ডাকা হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে কি ঘটেছিল তা জেনে পরে বলতে পারবো।

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..