বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:২৫ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ

পাবনায় বিচ্ছিন্ন কয়েকটি ঘটনার মধ্য দিয়ে ইউপি নির্বাচন

বিশেষ প্রতিবেদক, পাবনামেইল টোয়েন্টিফোর ডটকম
  • প্রকাশিত রবিবার, ২৬ ডিসেম্বর, ২০২১
Pabnamail24

পাবনার সদরে ৯ ইউনিয়নে শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন শুরু হলেও বিকেলে সহিংসতার খবর পাওয়া গেছে। নৌকার সমর্থকরা ভোটকেন্দ্র দখল ও ব্যালট পেপার ছিনতাই করার চেষ্টা করলে গোলাগুলি ও সংঘর্ষের ঘটনায় সদরের হেমায়েতপুর ইউনিয়নে ২ জন গুলিবিদ্ধসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি শান্ত করতে পুলিশ টিয়ারশেল-রাবার বুলেট ও ফাঁকা গুলি করে।

রোববার (২৬ ডিসেম্বর) বিকেল ৩ টার দিকে ইউনিয়নের চরঘোষপুর দাখিল মাদরাসায় গোলাগুলি ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এছাড়া ইউনিয়নের নাজিরপুর বিদ্যালয় কেন্দ্রে স্বতস্ত্র প্রার্থীর এজেন্টকে মারধর করে বের করে দিয়ে জোরপূর্বক নৌকার পক্ষে ছিল ভোট কেটে নেওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

চরঘোষপুর মাদরাসা কেন্দ্রে ভোট দিতে আসা রাকিব হোসেন জানান ‘সকালে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ শুরু হয়। সারাদিন সুষ্ঠু ভোট হলেও বিকেলে নৌকার প্রার্থীর সমর্থকদের কেন্দ্র দখল নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে নৌকার সর্থকরা।
এ সময় গোলাগুলি ও ককটেল নিক্ষেপ করে ভোটারদের মাঝে আতঙ্ক সৃষ্টি করে।’ তারা অভিযোগ করেন। এই কেন্দ্রে বহিরাগত নৌকার কিছু লোকজন এসে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে। আমরা শান্তিপুর্ণ ভোট চাই

সদরের হেমায়েতপুরের আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আনারস প্রতিকের প্রাথী আলাউদ্দিন মালিথা বলেন, ওই কেন্দ্রে সকাল থেকেই বহিরাগত নৌকার লোকজন হামলা করার চেষ্টা করছে। প্রশাসনের কড়াকড়িতে কেন্দ্র দখলের পায়তারা নস্যাৎ হওয়ায় দিশেহারা হয়ে কেন্দ্রে হামলা করে গুলি ছুরে। জন সমর্থন হারিয়ে নৌকার প্রার্থী ভোটকেন্দ্রে আক্রমন করার চেষ্টা করছে।

তিনি আরও বলেন, ইউনিয়নের বিভিন্ন কেন্দ্রে আমার এজেন্টকে বের করে দেওয়াসহ নৌকার পক্ষে ভোট কেটে নিয়েছে। অনেক জায়গায় আমার সমর্থককে মারধর করেছে।

তবে নৌকার প্রার্থী মঞ্জুরুল ইসলাম মধু তিনি বলে বিদ্রোহী প্রার্থী নিশ্চিত পরাজয় জেনে মিথ্যা অভিযোগ দিচ্ছের। গোলাগুলির কোনো ঘটনা আমার সমর্থকরা করেননি। বিদ্রোহী প্রার্থীরাই অস্তিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে।

অপর স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী (মোটরসাইকেল প্রতিক) আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর আলম জানান, সকালে নজরুল ইসলাম হাবু উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজ থেকে আমার এজেন্টদের বের করে দিয়েছে। সকাল থেকে আমার এজেন্টদের বের করে দিয়ে তারা নৌকার পক্ষে ভোট কেটে নিচ্ছে। আমার এজেন্টদের কেন্দ্রে গিয়ে বিভিন্ন হুমকি দিচ্ছে নৌকার লোকজন।

চরঘোষপুর ইসলামীয়া দাখিল মাদরাসা কেন্দের দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশের ইনচার্জ (এসআই) তরিকুল ইসলাম বলেন, ব্যালট পেপার ছিনতাই করার চেষ্টা করা হলে পরিস্থিতি শান্ত করতে পুলিশ ২৪ রাউন্ড গুলি ৪ টি রাবার বুলেট ও ২০ টি টিয়ারশেল নিক্ষেক করা হয়।

সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম বলেন, বর্তমান পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। এখানে অতিরিক্ত পুলিশ-বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। ঘটনায় কেউ আহত হওয়ার খবর আমাদের কাছে নেই। ভোটগ্রহণ স্বাভাবিক করা হয়েছে। ভোট দেওয়ার জন্য মাইকিং করা হচ্ছে।

চরঘোষপুর ইসলামীয়া দাখিল মাদরাসার প্রিজাইডিং অফিসার সাইফুল ইমসলাম জানান, এই কেন্দ্রে ৩৭ শ ভোটের মধ্য প্রায় শেষের দিকে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ব্যালট পেপার ছিনতাই করার চেষ্টা করলে আনছার সদস্যরা বাধা দেয়।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শেয়ার করুন

বিভাগের আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!