বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ০১:৩৫ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
এমপি ফিরোজ কবীরকে কুলাঙ্গার বললেন ইউপি চেয়ারম্যান শাজাহান! বেড়ার সেই বিতর্কিত ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে তদন্ত অনুষ্ঠিত সাঁথিয়ায় করোনার টিকার এসএমএসের ফাঁদে হাতিয়ে নিচ্ছে টাকা পাবনায় স্ত্রীকে গুলি করে হত্যার দায়ে স্বামীর মৃত্যুদন্ড পাবনায় শিশু স্কুল শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে হত্যা মাশুন্দিয়া ডিগ্রি কলেজ, ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগ! কোলচুরি গ্রামে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মুক্তিযোদ্ধার বাড়িতে বোমা নিক্ষেপ প্রধানমন্ত্রীর সাথে পাবিপ্রবি উপাচার্য ও উপ-উপাচার্যের সৌজন্য সাক্ষাৎ সাঁথিয়ায় নকল প্রসাধনী কারখানার সন্ধান, ভ্রাম্যমান আদালতে ৬ মাসের কারাদন্ড ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের ভারে ভারাক্রান্ত বেড়ার মাশুন্দিয়া ডিগ্রি কলেজ

স্ত্রী নির্যাতন ও নৈতিক স্খলনের অভিযোগে পুলিশের এসআই নাছির চাকুরিচ্যুত

নিজস্ব প্রতিনিধি, পাবনামেইল টোয়েন্টিফোর ডটকম
  • প্রকাশিত শুক্রবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২১
Pabnamail24

যৌতুকের কারণে স্ত্রী নির্যাতন, পরকীয়া ও নৈতিক স্খলনের অভিযোগ কারণে ঢাকা মেট্রোপলিটান পুলিশের সহকারী পরিদর্শন (এসআই) নাছির আহম্মেদকে চাকুরিচ্যুত করা হয়েছে। গত ৬ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার বিকেলে ঢাকা মেট্রোপলিটান পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার মোছা. ফরিদা ইয়াসমিন স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এই আদেশ দেওয়া হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, পাবনা সদর উপজেলার বলরামপুর গ্রামের সাইফুল ইসলামের মেয়ে রুবিনা আক্তার রুনার সঙ্গে পাবনা শহরের কাচারী পাড়ার মোস্তাক আহম্মেদের ছেলে নাছির আহম্মেদের পুলিশে চাকরি পাওয়ার আগেই ২০১২ সালের ২১ ডিসেম্বর পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই নাছির ৫ লাখ টাকা যৌতুক দাবী করে আসছিল। এই টাকা না দেওয়ায় নাছির প্রায়ই রুবিনা খাতুনের উপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালাতো। এক পর্যায়ে যৌতুক না পেয়ে অন্যদের যোগসাজশে নাছির তার স্ত্রী রুবিনাকে মারপিট করে আহত করেন। বিয়ের প্রায় দুই বছর পর ২০১৪ সালের ১১ নভেম্বর নাছির এসআই পদে চাকুরিতে যোগ দেন।

এদিকে যৌতুক দাবী ও মেয়ে মারপিটের ঘটনায় রুবিনার বাবা পাবনা সদর উপজেলার বলরামপুর গ্রামের সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে ২০১৯ সালে পাবনার নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনালে এসআই নাছির আহম্মেদ, তার বাবা মোস্তাক আহম্মেদ, মা সালমা আহম্মেদ ও বোন লাকী খাতুনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন।

ওই মামলায় নাছির আহম্মেদ গং এর বিরুদ্ধে আদালত গ্রেফতারি পরওয়ানা জারি করেন। নাছির আদালতে জামিনের জন্য হাজির হলে আদাল তার জামিন না মঞ্জুর কারাগারে পাঠায়। এছাড়াও আসামী নাছির আহম্মেদ রাজশাহীর রুকু খাতুন নামের এক নারীর সঙ্গে পরকীয়ায় আসক্ত বলেও মামলায় অভিযোগ করা হয়।

এ সব ঘটনায় পুলিশ সদর দফতর নাছিরকে সাময়িক বরখাস্ত করে এবং বিভাগীয় মামলা দায়ের করে। পরে বিভিন্ন তদন্তে নাছিরের যৌতুকের কারণে স্ত্রী নির্যাতন, পরকীয়া ও নৈতিক স্খলনের অভিযোগ প্রমাণিত হয়। এতে পুলিশ বিভাগের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে। ফলে তাকে চাকুরি থেকে স্থায়ীভাবে বরখাস্ত করা হয়। সরকারি নিয়মে বরখাস্তকালীন সময়ের কোন সুযোগ সুবিধা পাবেননা বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শেয়ার করুন

বিভাগের আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!