রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১০:৪৫ অপরাহ্ন

প্রার্থীরা ব্যস্ত মাঠ দখলে, জনদূর্ভোগ নিরসনে নেই প্রতিশ্রুতি

নিজস্ব প্রতিবেদক, পাবনামেইল টোয়েন্টিফোর ডটকম
  • প্রকাশিত বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারী, ২০২১
Pabnamail24

পৌর নির্বাচন সামনে রেখে জমজমাট প্রচার প্রচারনায় সরগরম পাবনা পৌর এলাকা। তবে নির্বাচন ঘিরে রাজনৈতিক উত্তাপে ঢাকা পরেছে পৌরবাসীর দীর্ঘদিনের নাগরিক সমস্যাদি। মূল দুই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর প্রচারণায় শক্তি প্রদর্শন, রাজনৈতিক অধিপত্য ও নিজনিজ জনসমর্থন দেখানোর প্রবণতা থাকলেও সুনির্দিষ্ট করে কেউ দীর্ঘদিনের জমে থাকা নানা সমস্যা সমাধানের কথা বলছেন না বলে অভিযোগ পৌরবাসীর। নির্বাচনের মাত্র এক সপ্তাহ বাকী থাকলেও মেলেনি কোন প্রার্থীর সুর্নিদিষ্ট নির্বাচনী ইশতেহার।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, বর্তমান সরকারের সময়ে দেশের বিভিন্ন পৌরসভায় ব্যাপক উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ পরিচালিত হলেও প্রায় দুইশত বছরের পুরানো পাবনা পৌরসভায় তার ছোঁয়া লাগেনি। রুপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মান প্রকল্প, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়, মেডিকেল কলেজ, পাবনা রেল লাইনসহ বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়েছে। পাশাপাশি গড়ে উঠেছে নানা ধরনের শিল্প প্রতিষ্ঠান। এতে গত দশ বছরে জেলা শহরে প্রায় লক্ষাধিক অতিরিক্ত মানুষের আনাগোনা বেড়েছে। এই বাড়তি মানুষের চাপের সাথে তাল মিলিয়ে হয়নি পাবনা পৌরসভার আধুনিকায়ন, গড়ে ওঠেনি উন্নত মানের রাস্তা-ঘাট। মান্ধাতার আমলের ড্রেনেজ ব্যবস্থা, সংকীর্ণ সড়ক ও পৌরসভার সীমিত জনবলের কারনে মিলছে না নূন্যতম নাগরিক সেবাটুকুও। প্রার্থীদের নির্বাচনী ইশতেহারে এসব বিষয়ে সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা থাকায় হতাশ পাবনা পৌরবাসী।

গোপালপুর লাহেড়ীপাড়ার বাসিন্দা জহুরুল আরেফিন বলেন, আমার বাড়ির সামনে প্রায় ৪০ বছর আগের নির্মিত ড্রেনেই এখনৈা চলছে পয়নিষ্কাশন। ড্রেনটির গভীরতা প্রায় ৫ ফিট হলেও তা গত ৫ বছরেরও বেশী সময় পরিষ্কার করতে দেখি নাই। এতে ড্রেনটি ভরাট হয়ে মাত্র এক ফিট গভীরতা রয়েছে। বর্ষা এলেই ড্রেনের পানি ও বর্জ্য বাড়িতে ঢুকে একাকার হয়। বারংবার পৌর কতৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করেও ফল মেলেনি। নতুন পৌর মেয়র হবেন, এমন প্রার্থীরাও এমন কথা বলতে শুনি নাই।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শহরের আব্দুল হামিদ রোডের এক ব্যবসায়ী বলেন, সংকীর্ণ সড়কের কারনে শহরের প্রধান সড়ক সারাদিন যানজটে স্থবির হয়ে থাকে। একটি এলাকায় কোন পরিকল্পনা ছাড়াই গড়ে উঠছে যত্রতত্র বিপনী বিতান। অগ্নিকান্ড কিংবা বড় কোন দূর্ঘটনা ঘটলেই অসহায় চেয়ে থাকা ছাড়া শহরবাসীর আর কিছুই করার থাকে না।

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়েল নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের শিক্ষক কামরুল হাসান বলেন, দুইশত বছরের পুরানো পাবনা পৌর শহরকে পরিপূর্ণ নাগরিক সেবার অওতায় আনতে হলে শহর বিকেন্দ্রীকরণসহ সড়ক প্রশস্ত করণ ও জলাবদ্ধতা নিরসনে পরিকল্পিত এবং বিস্তৃত পরিকল্পনা গ্রহন করা জরুরী। ইতিমধ্যেই এই বাসের অযোগ্য হয়ে পরেছে। এখনই ব্যবস্থা গ্রহন না করলে ভয়াভহ পরিনতি হবে এই পৌর এলাকার মানুষের। আমি আমা করি বর্তমান সরকারের দেশব্যাপী উন্নয়ণ অগ্রযাত্রার সাথে তাল মিলেয়ে নতুন জনপ্রতিনিধিরা শহর আধুনিকায়নে ভুমিকার রাখবেন।

 

 

 

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!