বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৪:৫০ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
পাবনা সুগার মিল বন্ধের প্রতিবাদে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ ২৯তম আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস ও ২২তম জাতীয় প্রতিবন্ধী দিবস পালিত সাঁথিয়ায় ৩ বারের মেয়রকে বাদ দিয়ে প্রার্থীর তালিকা বিনামূল্যে পেঁয়াজ ও রসুন বীজ বিতরণ পাবনার বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর ফখরুল ইসলাম আর নেই চাটমোহর পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে আ’লীগ-বিএনপিসহ ৫ প্রার্থীর মনোনয়ন জমা ব্রিজ ভাঙ্গা নিয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের নবনির্বাচিত কমিটির নেতৃবৃন্দকে সংবর্ধনা বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে কর্মবিরতি অব্যাহত ভুমি অফিস ভবনের স্থান নিয়ে পাল্টাপাল্টি অনশন ও মানববন্ধন

পাবনা কালেক্টরেটে কর্মবিরতির নামে ভূরিভোজ, ভোগান্তিতে সেবাপ্রার্থীরা

নিজস্ব প্রতিনিধি, পাবনামেইল টোয়েন্টিফোর ডটকম
  • প্রকাশিত বুধবার, ১৮ নভেম্বর, ২০২০
Pabnamail24

পাবনায় ৪র্থ দিনের মত পদ-পদবী পরিবর্তনের দাবীতে পুর্ন দিবস কর্মবিরতি পালন করেছেন কালেক্টরেট সহকারী সমিতির সদস্যরা। গত ৪ দিন ধরে চলা এই কর্মসূচীতে কার্যত অচল হয়ে পরেছে পাবনা কালেক্টরেট অফিসের কার্যক্রম। তবে, অভিযোগ উঠেছে দাবী আদায়ের জন্য কর্মসূচীর নামে তারা ফটোসেশন ও ভূরিভোজ করলেও অফিসে আগত সেবা প্রার্থীদের ভোগান্তি সৃষ্টি করছেন।

জানা গেছে, সচিবালয়ের ন্যায় পদ-পদবী পরিবর্তনের দাবীতে কেন্দ্রীয় কর্মসুচীর অংশ হিসেবে পাবনায় ৪র্থ দিনের মত চলছে জেলা প্রশাসনের অধিনস্থ ১৩ থেকে ১৬ গ্রেডভুক্ত কর্মচারীদের পক্ষকাল ব্যাপী পুর্ন দিবস কর্মবিরতি।

গত ৪ দিন ধরে সকালে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে গিয়ে এসব কর্মচারীরা হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করে কাজে যোগ না দিয়ে দপ্তরের বারান্দায় অবস্থান কর্মসূচী এবং বিক্ষোভ মিছিল করে।

এ সময় বক্তব্য বাংলাদেশ কালেক্টরেট সহকারী সমিতির পাবনা শাখার সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস ও সাধারন স¤পাদক মো: মহিউল ইসলাম। গত ১৫ নভেম্বর থেকে শুরু হওয়া এ কর্মসৃচী চলবে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত।

তবে বিক্ষোভ কর্মসূচীর নামে ফটোসেশন শেষেই হাসি ঠাট্টা আর ভূরিভোজে মেতে উঠছেন কর্মচারীরা। এতে সাধারণ সেবা প্রার্থীরা বঞ্চিত হচ্ছেন তাদের কাংখিত সেবা থেকে।

দূর দুরান্ত থেকে পাবনা কালেক্টরেট অফিসে আসা ভাঙ্গুড়া, চাটমোহর, বেড়া ও কাশি,নাথপুর এলাকার কয়েকজন সেবাপ্রার্থীরা ক্ষোভের সাথে জানান, জরুরী প্রয়োজনে কালেক্টরেট অফিসে এসে কর্মচারীদের এই আন্দোলনের কারনে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। পদ পদবী পরিবর্তনের জন্যে সরকারী কর্মচারীদের সাধারণ মানুষকে জিম্মী করার অধিকার কে দিয়েছে। দায়িত্ব জ্ঞানহীন এসব কর্মচারীদেও বিরুদ্ধে সরকারের ব্যবস্থা নেওয়া উচিত বলেও মন্তব্য করেন তারা।

পার ভাঙ্গুড়া থেকে আসা আসিফ আনোয়ার জানান, চাকুরীতে বেতন বৈশম্য বা পদ পদবীর বিষয়ে তাদের বক্তব্য থাকতেই পারে, তাই বলে অফিস বাদ দিয়ে এমন আন্দোলন সরকারী বিধি সম্মত কিনা তা আমাদেও বোধগম্য নয়। সাধারণের ট্যাক্সের টাকায় বেতন পাওয়া এসব কর্মচারীরা নিজেদের সেবক না ভেবে প্রভূ সেজে বসেছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!