বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ১১:৩৭ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
আব্দুল্লাহ-গালিব সৃতি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের খেলায় পাবনা ইগলস জয়ী পাবনায় আদালত চত্বর থেকে সাক্ষী অপহরণ, বাধা দেয়ায় লাঞ্ছিত ৩ আইনজীবী চলনবিলে শীত উপেক্ষা করে কৃষকরা বোরো রোপণে ব্যস্ত ঈশ্বরদীতে শিশু হত্যা মামলায় এক আসামির যাবজ্জীবন চলনবিলাঞ্চলে শীতে ছিন্নমূল মানুষের দুর্ভোগ চাটমোহরে ছিনতাইকারীর কবলে পড়ে দুধ ব্যবসায়ীর মৃত্যু জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে নির্বাচনী সংঘাতে এলাকাছাড়া পরিবারের সংবাদ সম্মেলন স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা গ্রহণের দাবিতে পাবনায় শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন পাবনায় পদ্মা নদীর বুকে সেই রাস্তা অপসারণ করলো প্রশাসন রূপপুর প্রকল্পে থামছে না চুরি, এবার ক্যাবল চুরি

ঈশ্বরদীর সাহাপুরে প্রতিবন্ধী যুবকের লাশ উদ্ধার, মহিলা গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিনিধি, পাবনামেইল টোয়েন্টিফোর ডটকম
  • প্রকাশিত শুক্রবার, ২৫ জুন, ২০২১
Pabnamail24

পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার সাহাপুরে ইউনিয়নের আওতাপাড়া থেকে চাপা হোসেন (৩০) নামের এক প্রতিবন্ধী যুবকের মরহেদ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে সাহাপুরে ইউনিয়নের আওতাপাড়া পশ্চিমপাড়া গ্রামের মানিক সরদারের বাড়ি থেকে ওই যুবকরে লাশ উদ্ধার করা হয়। এ সময় ছামেলা খাতুন (৪০) নামের এক মহিলাকে গ্রেফতার করা হয়। তার বাড়িও চাটমোহরে। মানিক সরদারের পুত্রবধু ও জাহিদুল সরদারের স্ত্রী। নিহত প্রতিবন্ধী যুবকের পিতার নাম জানা না গেলেও তার বাড়ি পাবনা জেলার চাটমোহরে। সে ভ্যানে করে বিভিন্ন এলাকায় ভিক্ষা করতো। লাশ উদ্ধার করে ঘটনাটির তদন্ত করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আসাদুজ্জামান।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানায়, চাটমোহরের চাপা নামের ওই প্রতিবন্ধী যুবক ভ্যানে করে ঈশ্বরদীতে ভিক্ষা করতে আসতো। এলাকার পরিচিত হিসেবে চাপা হোসেন প্রায়ই সাহাপুর ইউনিয়নের আওতাপাড়া পশ্চিম পাড়া গ্রামের ছামেলা খাতুনের শ্বশুড় বাড়িতে যাতায়াত করতো।

তার সাথে নিরঞ্জন (৩২) নামের চাটমোহর এলাকার আরও এক প্রতিবন্ধী ভিক্ষুক থাকতো। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয়রা জানান, হয়তো টাকা পয়সার কোন বিষয় নিয়ে ঝামেলা হওয়ায় চাপাকে পরিকল্পিত ভাবে বাড়িতে ডেকে নিয়ে হত্যা করা করেছে ছামেলা খাতুনসহ তার পরিবার। গভীর রাতে লাশটি গুম করার পরিকল্পনা ফাঁস হয়ে গেলে স্থানীয় কুলি ছাইদার হোসেন সাহাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চৌকিদার রহিদুল্লাহ্ কে সাথে নিয়ে মানিক সরদারের বাড়িতে গেলে তাদের ভেতরে ঢুকতে বাঁধা দেয়া হয়।

পরে তারা ঈশ্বরদী থানা পুলিশকে জানালে ঈশ্বরদী থানার ওসি আসাদুজ্জামানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে লাশটি উদ্ধার করে। সে সময় অসংলগ্ন কথাবর্তা বলায় ছামেলা খাতুন কে আটক করে। বাড়ির অন্য সদস্যরা আগেই পালিয়ে যায়।

ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আসাদুজ্জামান বলেন, এটি একটি হত্যাকান্ড। লাশের শরীরে অসংখ্য আঘাতের চিহৃ রয়েছে। আটককৃত ছামেলা খাতুনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তবে কি কারণে হত্যা করা হয়েছে এখনই সেটি বলা সম্ভব হচ্ছে না।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শেয়ার করুন

বিভাগের আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!