বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৩:৫২ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ

পুকুর থেকে অন্ত:সত্ত্বার মরদেহ উদ্ধার, স্বামী ও শ্বাশুড়ি আটক

নিজস্ব প্রতিনিধি, পাবনামেইল টোয়েন্টিফোর ডটকম
  • প্রকাশিত সোমবার, ২ নভেম্বর, ২০২০
Pabnamail24

পাবনার আটঘরিয়া উপজেলায় পুকুর থেকে অন্তঃসত্ত্বা এক গৃহবধুর মরদেহ উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় নিহতের স্বামী ও শ্বাশুড়িকে আটক করেছে পুলিশ। নিহত আমেনা খাতুন (২৪) আটঘরিয়া উপজেলার চকধলেশ্বর গ্রামের আমিন উদ্দিনের মেয়ে।

স্থানীয়রা জানান, আটঘরিয়া উপজেলা সদরের চক ধলেশ্বর এলাকার আমিন উদ্দিনের মেয়ে আমেনা খাতুনের সাথে প্রায় পাঁচ বছর আগে কন্দপপুর এলাকার হায়দার আলীর ছেলে জাহিদ হোসেনের সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই তাদের মধ্যে পারিবারিক কলহ চলছিল। দম্পত্ত জীবনে তাদের সংসারে চার বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। বর্তমানে গৃহবধু আট মাসের অন্তঃস্বত্তা ছিলেন।

আটঘরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুর রহমান জানান, সোমবার সকালে স্থানীয়রা কন্দপপুর এলাকার একটি পুকুরে গৃহবধু আমেনা খাতুনের মরদেহ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাবনা জেনারেল মর্গে পাঠায়।

ওসি আরো জানান, এ ঘটনায় গৃহবধুর স্বামী জাহিদ হোসেন ও শ্বাশুড়ি রাশিদা খাতুনকে আটক করা হয়েছে। নিহত গৃহবধুর মুখে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। নিহতের ময়না তদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পরে মৃত্যর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

এলাকাবাসী ও স্বজনরা অভিযোগ করেন, ৮ বছর আগে পাবনার আটঘরিয়া পৌর এলাকার ধলেশ^র গ্রামের আমিন উদ্দিনের মেয়ে আমেনা খাতুনের সাথে বিয়ে হয় পাশের চক ধলেশ^র গ্রামের হায়দার আলীর ছেলের আজিম উদ্দিনের। তাদের সংসারে ৬ বছরের একটি শিশুকন্যার পর আবারো ৮ মাসের অন্তস্বত্তা ছিলেন আমেনা। স্বজনদের অভিযোগ, বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের দাবীতে নির্যাতন করে আসছিল তার স্বামী। গত বছরেও বিষয়টি নিয়ে পৌরসভায় শালিসী বৈঠকের মাধ্যমে সুরহা হয়। তারপরেও প্রায়ই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কলহ চলে আসছিল।

সোমবার ভোর রাতে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়ার এক পর্যায়ে আমেনাকে স্বামী ও শ^াশুড়ি মিলে মারধোর করে। আমেনা খাতুন মারা গেলে বাড়ির পাশের পুকুরে মৃতদেহ ফেলে দেয় বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর। তবে, এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবী করেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও স্বজনরা।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!