রবিবার, ২২ মে ২০২২, ০৮:১৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
পাবনা প্রেসক্লাবে সাংবাদিক আ জ ম আব্দুল আওয়ান খান স্মরণসভা বৈশাখী ঝড়ে স্কুলের দ্বিতল ভবনের টিনের ছাদ ক্ষতিগ্রস্থ, ব্যাহত শিক্ষা কার্যক্রম সাঁথিয়ায় ২য় দিনেও ক্লাস বর্জন, বিচারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ আমিনপুর থানা আওয়ামীলীগের প্রথম সভাপতি ইউসুফ আলী খান, সম্পাদক রেজাউল হক বাবু কুঁজো মানুষের চিৎ হয়ে শোয়ার স্বপ্ন-আব্দুর রহমান জাতীয় সরকার প্রস্তাব, কুঁজো মানুষের চিৎ হয়ে শোয়ার স্বপ্ন —- আওয়ামীলীগ সভাপতি মন্ডলীর সদস্য আব্দুর রহমান প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় সুজানগরে ছাত্রীকে পিটিয়ে জখম, সহপাঠিদের প্রতিবাদ সুজানগরে সরকারি কালভার্ট ভেঙে নির্মাণ সামগ্রী লুট, তদন্ত কমিটি এমপি পুত্রের স্লিপ অব টাং! হাসপাতোলে অনিয়মের প্রতিবাদ করায় রোগীকে হুমকির অভিযোগ পামেক ছাত্রলীগ সম্পাদকের বিরুদ্ধে

চিহ্নিত সন্ত্রাসী, মাদক ব্যবসায়ীদের নিয়ে পাবনা জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের কমিটি প্রস্তাবনা!

পাবনামেইল টোয়েন্টিফোর ডেস্ক
  • প্রকাশিত বুধবার, ৬ এপ্রিল, ২০২২
Pabnamail24

অর্থের বিনিময়ে হত্যা মামলার আসামী চিহ্নিত মাদকসেবী, মাদক ব্যবসায়ীদের গুরুত্বপূর্ণ পদ দিয়ে পাবনা জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি প্রস্তাবনার অভিযোগ উঠেছে। দলের ত্যাগী কর্মীদের বঞ্চিত করে চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের জেলা কমিটিতে স্থান দিতে কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে। পদ বাণিজ্য করতে জেলা কমিটির দুজন সহসভাপতি, যুগ্ম সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদকদেরও মতামত বা আলোচনা ছাড়াই জেলা সভাপতি ও সম্পাদক প্রস্তাবিত কমিটি কেন্দ্রে জমা দিয়েছেন বলেও অভিযোগ একাধিক নেতার। বিতর্কিতদের বাদ দিয়ে যোগ্য কর্মীদের মূল্যায়ণেরও দাবি জানিয়েছেন তারা।
জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাবু শেখ জানান, ২০২০ সালের ২৬ নভেম্বর আহমেদ শরীফ ডাবলুকে সভাপতি ও রুহুল আমিনকে সাধারণ সম্পাদক করে পাবনা জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রিয় কমিটি। এ সময় ভিপি আব্দুল আজিজ ও রফিকুল ইসলাম রুমনকে সহসভাপতি, বাবু শেখ ও নাজমুল আলম ডনকে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, শেখ আলী ও হুমায়ুন কবীর পাভেলকে সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ দেয় কেন্দ্রীয় কমিটি। জেলার নতুন দায়িত্বপ্রাপ্তদের সাথে নিয়ে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে বলা হলেও, কোন আলোচনা ছাড়াই সভাপতি ও সম্পাদক নিজ পছন্দের লোকজনকে পদ দিয়ে কেন্দ্রে প্রস্তাবিত কমিটি জমা দিয়েছেন। এ কমিটিতে চিহ্নিত সন্ত্রাসী, মাদক ব্যবসায়ী ও বিতর্কিতদের গুরুত্বপূর্ণ পদ দেয়া হয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্বেচ্ছাসেবকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির এক সদস্য জানান, পাবনা জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের প্রস্তাবিত কমিটির অধিকাংশের বিরুদ্ধেই হত্যা, চাঁদাবাজি, নারী নির্যাতন মামলা, মাদক ব্যবসা ও সেবনসহ গুরুত্বর অভিযোগ রয়েছে। তথ্য প্রমাণাদি সহ লিখিত অভিযোগও জমা পড়েছে। এ কারণে কেন্দ্রিয় কমিটি প্রস্তাবিত কমিটি অনুমোদন না দিয়ে যাচাই বাছাই করছে।
কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে প্রস্তাবিত কমিটির নথি থেকে জানা যায়, সহসভাপতি পদে নাম প্রস্তাবনা দেয়া হয়েছে রমজান আলী শেখ সুমন ও মোয়াজ্জেম হোসেনের। শেখ সুমন পাবনার চাঞ্চল্যকর আতিকুল ও ফারুক হত্যা মামলার অন্যতম আসামী। তার বিরুদ্ধে মাদক ও অস্ত্র মামলাও রয়েছে। মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে যুবলীগ নেতা ইমন হত্যা মামলা, চাঁদাবাজি ও মাদকের বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে।
দপ্তর সম্পাদক পদে প্রস্তাবিত সোহাগ হোসেন বাপ্পী শহরের নিউমার্কেট এলাকায় প্রকাশ্যে সেলুন শ্রমিক রিমনকে কুপিয়ে হত্যা মামলার অন্যতম আসামী। প্রচার সম্পাদক পদে প্রস্তাবিত আল আমিন মালিথা বিসিক শিল্প নগরী এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী। তার নামে হত্যা, হত্যাচেষ্টা, চাঁদাবাজির একাধিক মামলা আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক পদে নাম প্রস্তাবনা দেয়া রাজিব চৌধুরীর নামে সদর থানায় একাধিক মামলা রয়েছে।
প্রস্তাবিত কমিটির ত্রাণ ও দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা সম্পাদক কামরুজ্জামান রনির বিরুদ্ধে ছাত্রলীগ নেতা সোহাগ হত্যা চেষ্টা মামলা, নারী নির্যাতন, চুরি ও চাঁদাবাজির বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে। তার বিরুদ্ধে পুলিশের তদন্তে অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় দ্রুত বিচার আইনে আদালতেও কয়েকটি মামলা বিচারাধীন। এছাড়া, গ্রন্থ ও প্রকাশনা সম্পাদক পদে প্রস্তাবিত নুরুন্নবী নিবিড়ের বিরুদ্ধে হত্যা ও চাঁদাবাজি মামলা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলীমের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও পুলিশের উপর হামলা মামলা, তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক ইমরান খান শান্তর বিরুদ্ধে হত্যা মামলা রয়েছে। আইন বিষয়ক সম্পাদকের পদে নাম প্রস্তাব করা হয়েছে জেলা বিএনপির আহবায়ক ও বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিবের ভাগ্নে এস এম রাগীব আহসান মুন্নাকে। এছাড়াও রাজনৈতিক কর্মকান্ডে নিষ্ক্রিয় চা দোকানী, জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতির ব্যক্তিগত গাড়ী চালককেও পদ দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সহসভাপতি ভিপি আব্দুল আজিজ বলেন, আওয়ামীলীগের ঐতিহ্যবাহী অঙ্গ সংগঠন হিসেবে স্বেচ্ছাসেবকলীগে ত্যাগী ও যোগ্যদের মূল্যায়ন হওয়া উচিত। প্রস্তাবিত কমিটিতে বিতর্কিত ও চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের গুরুত্বপূর্ণ পদে নাম আসায় আমরা বিব্রত। কেন্দ্রিয় কমিটি বিষয়টি তদন্ত করে সিদ্ধান্ত নেবে।
পূর্ণাঙ্গ কমিটি জেলার সভাপতি ও সম্পাদক আলোচনা করে ঠিক করেন জানিয়ে জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন বলেন, সাবেক ছাত্রনেতা ও যোগ্যদের নাম প্রস্তাবনা দেয়া হয়েছে। তাছাড়া, প্রস্তাবিত কমিটিই যে অনুমোদন হবেই এমনও নয়। রাজনৈতিক কারণে কারো বিরুদ্ধে মামলা থাকতেই পারে। তবে, বিতর্কিত কিনা তা কেন্দ্র যাচাই বাছাই করে সিদ্ধান্ত নেবে।
পদ বানিজ্য করে বিতর্কিতদের নাম প্রস্তাবনার অভিযোগ অস্বীকার করে সভাপতি আহমেদ শরীফ ডাবলু বলেন, অর্থের বিনিময়ে কাউকে পদ দেয়া হয়নি। জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপির পরামর্শক্রমে কেন্দ্রে পূর্ণাঙ্গ কমিটি জমা দেয়া হয়েছে। প্রস্তাবিত কমিটিতে যাদের নাম দেয়া হয়েছে রাজনৈতিক কারণে বা হতাশা থেকে অনেকে বিপথগামী হয়েছিলেন। কিন্তু দলে তাদের অবদান রয়েছে। অতীতে বিভিন্ন মামলায় অভিযুক্ত হলেও বর্তমানে তারা ভাল পথে ফিরেছেন। এ কারণে তাদের পদ দেয়ার প্রস্তাবনা দেয়া হয়েছে। সভাপতি সম্পাদক হতে না পেরে কিছু নেতা অযথা বিতর্ক সৃষ্টি করছেন।
জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপি বলেন, স্বেচ্ছাসেবকলীগের কমিটি করতে আমার কোন পরামর্শ বা মতামত নেয়া হয়নি। সভাপতি সম্পাদক কমিটি জমা দিয়ে আমাকে জানিয়েছেন। এতে চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের নাম প্রস্তাবনা দেয়া হয়েছে বলে শুনেছি। বিষয়টি তদন্ত করে বিতর্কিতদের বাদ দিয়ে ক্লিন ইমেজের ত্যাগীদের মূল্যায়নে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের প্রতি আহবান জানাচ্ছি।

শেয়ার করুন

বিভাগের আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!