শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৯:৪৮ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
শ্রদ্ধা ভালোবাসায় সাংবাদিক রণেশ মৈত্রের শেষকৃত্য সম্পন্ন পাবনায় শারদীয় দুর্গোৎসব উপেলক্ষ্যে মর্জিনা লতিফ ট্রাস্টের বস্ত্র বিতরণ একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংবাদিক রণেশ মৈত্রের শেষকৃত্য সম্পন্ন পাবনায় ভাইয়ের দায়ের কোপে প্রাণ গেল ইসলামী আন্দোলনের নেতার ঈশ্বরদীতে গৃহবধূকে ছুরিকাঘাতে হত্যা রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে আবারও ডেঙ্গু আক্রান্ত শ্রমিকের মৃত্যু ফরিদপুরে মন্দিরের জায়গা দখল করে মেয়রের কোটি টাকার বাণিজ্য মেলা! উৎসবমুখর পরিবেশে পাবিপ্রবিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উদযাপন প্রতারণার অভিযোগ, সুজানগরে আ. লীগের নেতা উজ্জ্বলকে অবরুদ্ধ করে টাকা ফেরতের দাবী ও আলোর পথযাত্রী, এখানে থেমো না!

সজীব ওয়াজেদ জয়; স্বপ্নবাজ আর সংগ্রামী তারুণ্যের আশার বাতিঘর

খোন্দকার আল আনিম পরশ
  • প্রকাশিত বুধবার, ২৭ জুলাই, ২০২২
Pabnamail24

২৭ জুলাই ১৯৭১, ঝঞ্ঝাবিক্ষুব্ধ একটি সময়। সুনিপূণভাবে লিখিত হচ্ছে জাতির বিজয়ের ইতিহাস, এমন একটি সময়ে পিতা-মাতার কোল আলো করে জন্ম নেয় একটি শিশু। এই শিশুটির নাম আগেই রেখেছিলেন তার মাতামহ, বাঙালি জাতির স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রষ্টা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এই শিশুটির জন্মের সাথে একটি জাতির জন্মের সমার্থকতাকে হয়তো আগেই খুঁজে পেয়েই তিনি।
শিশুটির নাম রেখেছিলেন “জয়”।
শিশুটির বয়স যখন মাত্র চার বছর ঠিক সেই সময় হারিয়েছেন তার নানা, নানী, মামা, মামীসহ পরিবারের প্রতিটি সদস্যকেই। শৈশবের প্রারম্ভেই তিনি দেখেছেন নিষ্ঠুর নির্মমতা। রঙিন শৈশব তার জীবনে আসেনি। কালো মেঘ গ্রাস করে নিয়েছিল জীবনের সখ-আহ্লাদ সবটুকুই, এসেছিল রক্তাক্ত এক করুন অধ্যায়।
১৯৮১ সাল, যখন বুঝতে শিখলেন বয়স মাত্র দশ, তখন তার মা এই বাঙালির অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামের ঐক্যের প্রতীক হিসেবে ফিরে আসেন এই বাংলাদেশে। পিতা মুজিব বিহীন বাংলাদেশকে স্বপ্ন দেখাতে শুরু করেন নতুন করে।
বাঙালির ভাত ও ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য নিরন্তরভাবে শুরু হলো মায়ের ছুটে চলা।
মাতৃস্নেহবিহীন শুরু হলো তার শিক্ষাজীবন, ভারতের একটি বোর্ডিং স্কুলে। তারপরে ঘাতে প্রতিঘাতে কখনো চাকুরি করে, কখনো নিজের শখের বাইক বিক্রি করে, আবার কখনো কম টাকায় থাকার জায়গা খুঁজে নিয়ে বিশ্বের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ গুলো থেকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করলেন।
একটিবার চিন্তা করতে পারেন যার মাতামহ এই বাংলাদেশের স্রষ্টা অথচ সেই বাংলাদেশেই তাকে কোন প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে দেওয়া হয়নি। দেশের বাইরে একাধিকবার ওই একাত্তরের পরাজিত শক্তি তাকে আঘাত করতে চেষ্টা করেছে। তবুও থেমে থাকেননি তিনি নিজের সংগ্রামী জীবন থেকেই তারুণ্যের জন্য অনুপ্রেরণা সৃষ্টি করেছেন।
২০০৫ সাল, তিনি দেশে ফিরলেন সমগ্র বাংলাদেশ তার ভবিষ্যৎকে প্রচন্ড ভালোবাসায় বরণ করে নিয়েছিল।
খুব সম্ভবত জনকন্ঠ কিংবা সমকাল সেদিন লিখেছিল,
“স্বাগতম জয় বাংলায়”। সেদিন শিরোনামটি দেখার সৌভাগ্য হয়েছিল আমার। তখন আমি দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্র। সেদিন শিরোনামটির মর্মার্থ বোঝার বয়স ছিল না আমার, কিন্তু এখন বুঝি।
২০০৭ সাল, অগণতান্ত্রিক অবৈধ সরকার যেদিন চেপে বসলো বাঙালির ঘাড়ে, গণতন্ত্র চর্চার তীর্থস্থান মহান জাতীয় সংসদকে যেদিন প্রহসনের বিচারালয় বানিয়ে বন্দী করা হলো বাঙালির অস্থার শেষ ঠিকানা, পিতা মুজিবের রক্ত আর আদর্শের একমাত্র কান্ডারী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে। সেদিন আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দেন দরবার থেকে শুরু করে বিশ্ব বিবেককে ওই অবৈধ সরকারের বিরুদ্ধে জাগ্রত করার শুরুটা তিনিই করলেন।
২০০৮ সাল, স্বপ্ন দেখালেন তারুণ্যেকে। কেউ কেউ হাঁসি ঠাট্টা করেই উড়িয়ে দিলেন, কিন্তু থেমে থাকেননি তিনি। তার সেই স্বপ্নটি আজকের বাস্তবতা ডিজিটাল বাংলাদেশ। সেই স্বপ্নের পথ ধরেই আজকে মহাকাশে স্থান করে নিয়েছে বাংলাদেশ।
২০১৪ সাল, সমগ্র বাংলাদেশে যখন তথাকথিত একটি রাজনৈতিক দলের রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে তান্ডব চলছে, নাশকতা সন্ত্রাস নৈরাজ্য তান্ডব দমন করতে গিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা যখন দিশেহারা তখন তিনি কর্মীদের মাঝে প্রাণের সঞ্চার করলেন।
যুবলীগের এক কর্মসূচিতে গিয়ে বললেন, “আমার কাছে তথ্য আছে, আওয়ামী লীগ আবার ক্ষমতায় আসবে”
তখন বিরোধীমহল তো বটেই, আমাদের অনেকেই অট্টহাসি দিয়ে উড়িয়ে দিলেন কিন্তু পরবর্তীতে তার সেই বক্তব্য সত্য হলো।
তার ভাবনার প্রয়োগিক বাস্তবায়ন ৯৯৯ কিংবা ৩৩৩ দুর্যোগে কিংবা ক্লান্তিলগ্নে অসংখ্য গল্পের সৃষ্টি করছে লক্ষ কোটি মানুষের সংকট সংশয় নিরসন করে। আজকে তিনি সমগ্র বাংলাদেশকে ঠিক সেই পথেই নিয়ে যাচ্ছেন যে পথটি পিতা মুজিবের স্বপ্নের সোনার বাংলার আধুনিক রুপায়ণ।
আজকে ২৭ জুলাই ২০২২, একান্ন পেরিয়ে বায়ান্নতে পা রাখলেন তিনি।
জন্মদিনে শুভেচ্ছা শুভকামনা আর ভালোবাসা নিবেন আমাদের প্রিয় জয় ভাই।
বাংলাদেশ দীর্ঘজীবি হোক, আগামীর বাংলাদেশ এগিয়ে যাক আপনার নেতৃত্বে।
আপনার হাতেই নির্মিত হোক আমাদের সুন্দরতর আগামী।
আসছে জয়ের দিন,
#জয়েরমিছিলেআমরা_সবাই

শেয়ার করুন

বিভাগের আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!