বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০৯:০৮ পূর্বাহ্ন

ভূমিহীন মুক্তিযোদ্ধার জমি দখলের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিনিধি, পাবনামেইল টোয়েন্টিফোর ডটকম
  • প্রকাশিত শুক্রবার, ৪ মার্চ, ২০২২
Pabnamail24

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় ভূমিহীন নুরুল ইসলাম (৬৮) নামে এক বীর মুক্তিযোদ্ধার জমি বেদখল দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগ উঠেছে লাভলু সরকার (৩৫) নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে।

জানা গেছে, ভাঙ্গুড়া উপজেলার দিলপাশার ইউনিয়নের মাগুরা গ্রামের মোজাহার আলী সরদারের ছেলে ও বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম মাগুরা মৌজায় সরকারি ১ একর ৬৬ শতাংশ জমি উপজেলা ভূমি অফিস থেকে লীজ নেন। যাহার খতিয়ান নং ৬৬/৩৫৪ ও দাগ নং ৭৪৯/১৮৫, ৭৫৩/২২৭, ৭৫৩/২৩০ ও ৭৫৫/২২৮। নুরুল ইসলামের লাল মুক্তিবার্তা নম্বর- ৩১১০৯০০০৮।

এমতাবস্থায় গত ১০ ফেব্রুয়ারি নিজ বাড়িতে ব্রেন স্ট্রোক করেন নুরুল ইসলাম। পরে স্বজনেরা তাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। নুরুল ইসলামের অসুস্থতার সুযোগে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি তার ওই লীজকৃত জমি একই ইউনিয়নের চক লক্ষীকোল গ্রামের বক্কার সরকারের ছেলে লাভলু সরকার জোরপূর্বক ভাবে জমিতে চাষবাস শুরু করে। খবর পেয়ে সেখানে নুরুল ইসলামের অন্যান্য ভাইয়েরা গেলে নানা রকম ভয় ভীতি দেখায় এবং মারমুখী আচরণ করে অভিযুক্ত লাভলু। পরবর্তী তারা উপায় না পেয়ে ৯৯৯-এ কল দিলে ভাঙ্গুড়া থানার পুলিশ এসে কাজ বন্ধ করে দেয়।

এলাকাবাসীরা অভিযোগ করেন, আঃ বক্কার প্রকৃত একজন ভূমিদস্যু। প্রতিবছরই তিনি অথবা তার ছেলেরা নকল দলিল তৈরি করে এলাকার নিরিহ মানুষের জমি জোরপূর্বক ভাবে জমি দখল করে। এসবের কারণে বক্কর নিজ গ্রামে চক লক্ষীকোল না থাকতে পেরে পুঁইবিল বাজারে এসে বাড়ি করে রয়েছেন।

মাগুরা গ্রামের মৃত গোলবারের জমি, মৃত্যু মতিউর রহমানের জমি, এলাকার মসজিদের জমি ও শ্রী বাদল নাগের বসতবাড়ি সহ আবাদি জমি বেদখল দিয়ে তাকেও গ্রামছাড়া করেছে। এমন আরো অনেকের জমি বেদখল করেছে বলে অভিযোগ করেন এলাকাবাসীরা।

মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম বলেন, ভূমিহীন জমি ছাড়া বাপের পৈত্রিক সম্পত্তি নেই। আমি দেশের জন্য যুদ্ধ করেছি। এখন আমার জমি দখল করেছে ভূমিদস্যু ও তার ছেলে লাভলু। আমি এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ আশা করছি।
সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ মোকছেদুর রহমান বলেন, একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার জমি দখল করার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। একই সঙ্গে আমরা এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার কামনা করছি।

জমি দখলের বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত লাভলু সরকার বলেন, স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের কাছ থেকে জমি কিনেছেন। মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলামের ওই দাগে কোনো জমি নেই বলে তিনি দাবি করেন। তবে মুক্তিযোদ্ধার পরিবারকে ভয়ভীতি দেখানোর বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি এবং জমির কোনো কাগজপত্র দেখাতেও পারেননি তিনি।

এ বিষয়ে ভাঙ্গুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুঃ ফয়সাল বিন আহসান বলেন, তিনি ৯৯৯-এর মাধ্যমে খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পুলিশ পাঠিয়ে কাজ বন্ধ করে দেন। তবে আগামীকাল এনিয়ে বসার কথা রয়েছে বলে তিনি জানান।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ নাহিদ হাসান খান বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শেয়ার করুন

বিভাগের আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!