রবিবার, ২৯ মে ২০২২, ০৪:৫২ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
ভাঙ্গুড়ায় অনুষ্ঠানে দাওয়াত না পেয়ে শিক্ষকদের পিটিয়ে অনুষ্ঠান পন্ড করলেন ইউপি চেয়ারম্যান সাঁথিয়ায় বিরল রোগে আক্রান্ত শিশু জান্নাতুল বাঁচতে চায় নগরবাড়ি-বগুড়া মহাসড়কে ট্রাক চাপায় ভ্যান চালক নিহত সাঁথিয়ায় ক্লিনিকে প্রসুতির মৃত্যু, আপোষের আশ্বাসে তদন্ত বন্ধ! শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদ জেলা শাখার রকি সভাপতি-সারোয়ার সম্পাদক সাংবাদিক হাবিবুর রহমান স্বপনের উপর হামলা, থানায় অভিযোগ দায়ের পাবিপ্রবির সেকশন অফিসারের বিয়ে নিয়ে টালবাহানা করায় গেটে এক তরুণীর আত্মহত্যার চেষ্টা পাবিপ্রবি’র এক শিক্ষার্থীকে মারপিট, আশংকাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি ঈশ্বরদীতে চোর সন্দেহে যুবককে পিটিয়ে হত্যা সাঁথিয়ায় প্রধান শিক্ষকের হাতে লাঞ্ছিত স্কুলছাত্রী, বিচার চেয়ে ইউএনওর নিগ্রহের শিকার বিক্ষুব্ধ সহপাঠিরা

চাটমোহরে অবাধে বিক্রি হচ্ছে স্পর্শকাতর গ্যাস সিলিন্ডার, পেট্টোল ডিজেল

নিজস্ব প্রতিনিধি, পাবনামেইল টোয়েন্টিফোর ডটকম
  • প্রকাশিত রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১
Pabnamail24

পাবনার চাটমোহরে অবাধে বিক্রি হচ্ছে স্পর্শকাতর এলপিজি (গ্যাস সিলিন্ডার) ও পেট্টোল-ডিজেল। ফলে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দূর্ঘটনা। এর প্রতিকারের জন্য দোকানে নেই কোন আগুন নেভানোর ব্যবস্থা। এ নিয়ে নানা অজুহাত ব্যবসায়ী ও দোকানীদের।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সৈকত ইসলাম বলেছেন, যেখানে সেখানে পেট্টোল, ডিজেল আর এলপিজি বিক্রি করায় দূর্ঘটনার সম্ভাবনা রয়েছে। এজন্য পদক্ষেপ নেওয়া হবে। ছোট ছোট দোকান বন্ধ করতে তিনি বিট পুলিশ, ইউপি চেয়ারম্যান ও আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তার সমন্বয়ে কমিটি গঠণ করেন। তাছাড়া ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হবে বলে জানান তিনি।

সভায় সহকারী কমিশনার (ভূমি) শারমিন ইসলাম বলেন, বিস্ফোরক লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা করতে হবে। তাছাড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, চাটমোহর পৌর শহরসহ উপজেলার হাট-বাজার, রাস্তার মোড়ে মোড়ে সড়কের পাশে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে এলপি গ্যাস, পেট্টোল ও ডিজেল। দামও নেওয়া হচ্ছে বেশি। গ্যাস ও তেল বিক্রির জন্য নেই কোন অগ্নিনির্বাপক বা বিস্ফোরক লাইসেন্স। দোকানী ও ব্যবসায়ীরা বলছেন, তাদের প্রতিষ্ঠানের ট্রেড লাইসেন্স রয়েছে। দেখা গেছে, ট্রেড লাইসেন্স করা হয়েছে মুদি দোকান, চায়ের দোকান বা ইলেট্রিক্যাল সামগ্রী বিক্রির জন্য।

উপজেলার মুদি দোকান থেকে শুরু করে পানের দোকান, ফোনে টাকা রিচার্জের দোকান, প্লাস্টিক সামগ্রীর দোকান, ফলের দোকান, বিভিন্ন শো-রুম, ওষুধের দোকান, কীটনাশকের দোকান, বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির দোকানের সামনে রাখা হয়েছে এলপি গ্যাস, ডিজেল ও পেট্টোল। এ ধরণের ব্যবসার ফলে সরকার যেমন রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তেমনি দূর্ঘটনার আশংকাও রয়েছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শেয়ার করুন

বিভাগের আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!