বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:৫০ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ

পাবিপ্রবির দিনভর নানা কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালন

নিজস্ব প্রতিনিধি, পাবনামেইল টোয়েন্টিফোর ডটকম
  • প্রকাশিত রবিবার, ৫ জুন, ২০২২
Pabnamail24

২০০৮ সালে ৫ই জুন পাবনা শহরের অদুরে জলাভূমি ভরাট করে মাত্র ৩০ একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠা করা হয় দেশের ২৯ তম পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। নানা আলোচনা সমালোচনাকে কাধে করে গুটি গুটি পায়ে একযুগ পার করার পর আজ পেরুলো ১৪ টি বছর। তাই তো বিশ্ববিদ্যালয় পালন করলো তার ১৪ তম প্রতিষ্ঠা দিবস।

দিবসটি উপলক্ষ্যে সকালে প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে একটি আনন্দ শোভাযাত্রা বের হয়ে ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে স্বাধীনতা চত্ত্বরে গিয়ে শেষ হয়। পরে উদ্বোধন করা হয় কবি বন্দে আলী মিয়া মুক্তমঞ্চ। তাছাড়া বৃক্ষরোপণ ও শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পণ কর্মসূচী শেষে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। সভায় সভাপতিত্ব করেন পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. হাফিজা খাতুন। প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত মহিলা বিজ্ঞানী ড. হাসিনা খান। বক্তব্যে তিনি বলেন, বিজ্ঞান চর্চায় মেয়েদের কম দেখা যায়। এক হাতে নয় উভয় হাতে তথা ছেলে-মেয়ে উভয়েরই বিজ্ঞান চর্চায় আত্মনিয়োগ করা প্রয়োজন। বিশ্ববিদ্যালয়ে উন্নয়ন সাধনের ব্যাপারে তিনি বলেন, উন্নয়ন সাধন বা সফলতায় চেইন অব কমান্ড মেনে চলা, মিতব্যয়ী ও নির্লোভী হওয়া প্রয়োজন।

সভাপতির বক্তব্যে উপাচার্য ড. হাফিজা খাতুন বলেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়কে আমরা রোল মডেলে পরিণত করব ইনশাল্লাহ। যেনো অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আমাদের অনুসরণ করেন। তিনি মনে করেন, একাগ্রতা সততা ও শ্রমের মধ্য দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন সাধিত হবে। এক্ষেত্রে একে অপরের প্রতি সম্মানবোধ বজায় রেখে একসাথে কাজ করলে পাবিপ্রবি একটি রোল মডেল হয়ে উঠবে। শিক্ষার্থীসহ সবার মধ্যে শৃঙ্খলাপূর্ণ মনোভাব বজায় রাখার তাগিদও তিনি দেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়টির উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এস.এম. মোস্তফা কামাল খান ও সাবেক ট্রেজারার আনোয়ার খসরু পারভেজ। এছাড়া অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীসহ শিক্ষার্থীবৃন্দ। সভা শেষে কৃতী শিক্ষার্থীদের মাঝে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

উল্লেখ্য জেলা শহর থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে রাজাপুরে প্রতিষ্ঠা পাওয়া বিশ্ববিদ্যালয়টি বর্তমানে ৫ টি অনুষদ, ২১ টি বিভাগ, ৫ হাজার শিক্ষার্থী (প্রায়), ১৭৮ জন শিক্ষক ও ৯৩ জন কর্মকর্তাসহ অসংখ্য ককর্মচারী নিয়ে এগিয়ে চলছে।

শেয়ার করুন

বিভাগের আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!